The Classic (2003) – Korean Movie Bangla Review

জানি সবাই দেখে ফেলেছেন তারপরও আমি এই মুভি নিয়ে একটি পোস্ট করলাম।এর কারণ হলো ইদানিং রাতের বেলায় রাস্তায় বের হলে মাঝে মাঝে অনেক জোনাকি পোকা দেখা যায়। এই জোনাকি পোকা দেখলে আমার আমার দুটি মুভির কথা মনে পড়ে। একটি হলো জাপানিজ এনিমেশন grave of the fireflies এবং অন্যটি হলো এই The classic. Grave of the Fireflies নিয়ে একটি পোস্ট করেছিলাম অনেক দিন আগেই তাই হঠাৎ করে চিন্তা করলাম The Classic (2003) – Korean Movie Bangla Review করি।

The classic মুভিটি আমার অসম্ভব প্রিয় একটি রোমান্টিক মুভি।আমি যদি সেরা দশটি রোমান্টিক মুভির লিস্ট করি তাহলে the classic সবার আগে দিকে থাকবে। তিনটি কারণে এই মুভিটি আমার খুবই পছন্দ। একটি হল এর গল্প যেটা খুবই সাধারন কিন্তু ইউনিক। দ্বিতীয়টি হলো এর হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকে এবং তৃতীয়টি হলো অসাধারণ ভালো লাগার কিছু রোমান্টিক দৃশ্য।আর সব সময়ের মতো কোরিয়ান সেই আবেগ তো আছেই যা আপনাকে কাঁদাতে বাধ্য করবে।

গল্প:

মুভিতে দুটি প্রজন্মের ভালোবাসার গল্পকে উপস্থাপন করা হয়েছে।বর্তমানে মেয়ে এবং অতীতে মায়ের ভালোবাসারকে পাশাপাশি দেখানো হয়েছে।Ji-hye (মেয়ে) একদিন ঘর পরিষ্কার করতে গিয়ে তার মায়ের পুরনো ডায়েরী খুঁজে পায়। যেখান থেকে সে তার মায়ের ভালোবাসার কথা জানতে পারে। আর ফ্ল্যাশব্যাকে তখন তার মায়ের সেই অতীতের ভালোবাসার স্মৃতিগুলো মুভিতে দেখানো শুরু হয়। Ji-hye নিজেও একই বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছেলেকে ভালোবাসে কিন্তু সে লজ্জা এবং দ্বিধায় সেটা প্রকাশ করতে পারে না। কারণ তার কাছের বান্ধবীও আবার ওই ছেলেকেই ভালবাসে ।তাই সে তার ভালোবাসার কথা চেপে রাখে। তার এবং তার মায়ের ভালোবাসার গল্পের মধ্যে একটি যোগসূত্র আছে যেটা মুভির একটি টুইস্ট।মুভির গল্পটা সহজ সরল হলেও দেখার সময় একটু জটিল মনে হলেও হতে পারে। কারণ হচ্ছে মুভিতে অতীত এবং বর্তমানের দৃশ্যগুলো পাশাপাশি দেখানো হয়েছে। তাই কোনটি অতীত ও কোনটি বর্তমান সেটা নিয়ে একটু দ্বিধা তৈরি হতে পারে।

মুভিতে মা এবং মেয়ের দুই চরিত্রেই অভিনয় করেছে জনপ্রিয় অভিনেত্রী Son Ye-jin এবং বরাবরের মতই তার অভিনয় ছিল অসম্ভব সাবলীল। দুই সময়ে অভিনয় করা দুই অভিনেতার অভিনয়ও খুবই ভাল ছিল। তবে তার মায়ের প্রেমিক চরিত্রে অভিনয় করা অভিনেতা Cho Seung-woo এর অভিনয় আমার অসম্ভব ভালো লেগেছে। বিশেষ করে তার হাসিটি কখনোই ভুলার মত নয়। পরে তার আরেকটি মুভি আমি দেখেছিলাম Love phobia নামে। বর্তমান সময়ে অভিনয় করা অভিনেতা Jo In-sung এর a dirty carnival মুভিটি আমার অনেক পছন্দের। তাছাড়াও তার আরো দুটি মুভি পরে দেখেছি…

মিউজিক:

এই মুভি ভালো লাগার পেছনে অর্ধেক অবদান ছিল এর ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকের। মুভির সাথে সাথে যখন এই ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক পেছনে চলতে থাকে তখন মনের মধ্যে এক অন্যরকম ভাললাগার অনুভূতি তৈারি হয়।যা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। মুভির ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক Firefly 💚

আমার মোবাইলের রিংটোন হিসেবে সেট করে রেখেছিলাম বহুদিন।কত বার যে এটি শুনেছি তার হিসাব নেই। এখনো মন খারাপ থাকলে মাঝেমধ্যে এই মিউজিকটি অথবা এর গানটি শুনি। এই পোষ্টটি যখন লেখতেছি তখনও পেছনে মিউজিকটি চলতেছে। মুভিতে আরো একটি অসম্ভব প্রিয় গান ছিল Me To You, You To Me.বর্তমান সময়ে নয়ক এবং নায়িকা যখন বৃষ্টির মধ্যে মাথার উপর জামা দিয়ে দৌড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিল্ডিং থেকে অন্য বিল্ডিং এ যায় তখন স্লো মোশনে বৃষ্টির সাথে সেই দৃশ্যের পেছনে বাজতে থাকে এই গানটি।এ এক অদ্ভুত ভাল লাগার মুহূর্ত।

রোমান্টিক দৃশ্য:

এই মুভিতে অসম্ভব হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া কিছু রোমান্টিক দৃশ্য ছিল। যে রকমটা সাধারণত আমরা আমাদের প্রিয় মানুষকে নিয়ে কল্পনা করে থাকি। যেমন- অতীত সময়ে নায়িকা নায়কের সাথে পরিত্যক্ত বাড়িতে গিয়ে ভূতের ভয়ে দৌড়ে পালিয়ে আসা, ঝুম বৃষ্টিতে নৌকা ভেসে নদীর বহু দূরে চলে যাওয়া, বৃষ্টির মধ্যে দৌড়াতে গিয়ে নায়িকার পায়ে ব্যথা পাওয়া এবং যায় ফলে নায়ক তাকে কাঁধে করে বয়ে নিয়ে যাওয়া,ছাউনির মধ্যে বসে দুজনে মিলে তরমুজ খাওয়া, বাঁশের সাঁকো পাড় হয়ে নায়ক পানিতে নেমে নায়িকাকে জোনাকি পোকা ধরে দেওয়ার চেষ্টা করা। এই দৃশ্যগুলো যখন চলতে থাকে তখন পিছনে বাজতে থাকে সেই ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকটি। এই মুহূর্তগুলো যে কোন মানুষের মনকেই নাড়িয়ে দিতে বাধ্য।এই মুহূর্তগুলো কিছু সময়ের জন্য হলেও আপ

মুভি একটি অসম্ভব আবেগময় দৃশ্য হচ্ছে Jun-ho (অতীত সময়ের নায়ক ) যখন যুদ্ধ থেকে ফিরে এসে নায়িকার সাথে দেখা করতে যায়, তখন সেখানে গিয়ে সে নায়িকার সাথে খুবই সুস্থ স্বাভাবিক একজন মানুষের মতো আচরন করে। আসলে সে যেটা না। এরকম আরো অনেক আবেগপ্রবণ দৃশ্য মুভিতে আছে যা আপনার চোখে পানি এনে দিতে বাধ্য করবে।পাশাপাশি মুভিতে কিছু মজার দৃশ্যও আছে।যা দেখে হাসি পাবে। The classic মুভিটির cinematography

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *