লর্ড অফ দ্যা রিংস এবং হ্যারি পটার ছবির আদ্যোপান্ত

ফ্যান্টাসি জনরায় মুভি জগতে সবচেয়ে বড় ফ্র‍্যাঞ্চাইজি ( Lord of the rings )লর্ড অফ দ্যা রিংস এবং ( Harry Potter ) হ্যারি পটার

J.R.R. Tolkien এর বই থেকে নির্মিত লর্ড অফ দ্যা রিংস মুভি সিরিজ আর J.K. Rowling এর হ্যারি পটার থেকে নির্মিত হয় হ্যারি পটার মুভি সিরিজ।

হ্যারি পটার এবং লর্ড অফ দ্যা রিংস শুধু মুভিতে না বইয়ের জগতেও সবচেয়ে বিখ্যাত দুই ফ্যান্টাসি জনরার বই। লর্ড অফ দ্যা রিংসকে তো ফ্যান্টাসি জনরার পথপ্রদর্শকই বলা হয়।

Lord of the rings কাহিনী সংক্ষেপ:

J.R.R. Tolkien, দ্য হবিটের লেখক। সৃষ্টি করে গেছেন কালজয়ী উপন্যাস লর্ড অফ দ্য রিংস। দ্য হবিট হয়ে পড়ে লর্ড অফ দ্য রিংসের প্রিক্যুয়েল। তাঁর এই অনবদ্য সৃষ্টি এসে পড়ে পর্দায়।

বইয়ের মতোই সিনেমাগুলো ও কাপিয়েছে বিশ্ব। IMDB তে প্রথম সারির পনেরোটার মধ্যেই জায়গা পায় লর্ড অফ দ্য রিংসের তিনটি মুভির প্রত্যেকটি। পিটার জ্যাকসনের বিখ্যাত হয়ে ওঠা যা দিয়ে।

একটা তথ্য দেওয়া দরকার। অনুমান করতে পারেন যে এর অস্কার কয়টি?? ১৭টি

The lord of the rings: The fellowship of the ring (2001)

Imdb: 8.8/10

The lord of the rings: The two towers (2002)

Imdb: 8.7/10

The lord of the rings: The return of the king (2003)

Imdb: 8.9/10

মুভিটি যেভাবে শুরু হয়

গল্পে থাকে মহান ১৯টি আংটি। যেখানে ৩টি পায় এলফরা জ্ঞানী,অবিনশ্বর তারা।

৭টি পায় বামনেরা যারা থাকে মহান কারুশিল্পী। বাকি ৯টি পায় মানবজাতি।

এই আংটিগুলোর মধ্যে ছিলো প্রত্যেক জাতিকে চালনা করার শক্তি৷ কিন্তু না, আরেকটি আংটি তৈরি হলো। মর্ডরের গহীনে,মাউন্ট ডুমের শিখায়। লর্ড সাওরন তৈরি করলো মহান আংটি,মহার্ঘ। কিন্তু আংটি রাখতে পারেনি সে, যুদ্ধে তার দৈহিক পতনের সাথে আংটির ও হাত বদল হয়।

তবে আংটি সাওরনকেই প্রভু বলে জানে। বহুকাল পরে আংটির ও তার প্রভুর কাছে যাওয়ার ইচ্ছা বাড়তে থাকে। এদিকে সাওরনের তো আর আত্মিক পতন হয়নি। শুরু হয়ে যায় আবার অন্ধকারের খেলা। তবে আংটিকে থামানো না গেলে ধ্বংস অবশ্যম্ভাবী বাকি জাতিদের জন্য। এদিকে সাওরানের হাতে বিশাল বাহিনী,ক্ষমতা। শুরু এক বিশাল অভিযানের…

J.K. Rowling এর বিখ্যাত সৃষ্ঠি হ্যারি পটার। যদিও এর মাঝে প্রকাশকরা সম্ভাবনাই দেখেনি। যাই হোক শেষ অবধি ভাগ্যক্রমে J.K. Rowling ও প্রকাশক পায় আর হ্যারি পটার লাভ করে তুমুল জনপ্রিয়তা। বইগুলো অবলম্বন করে বানানো ৮ টা মুভিও লাভ করে প্রচুর জনপ্রিয়তা।

Harry Potter কাহিনী সংক্ষেপ:

জাদুর ছড়াছড়ির গল্প। গল্প হ্যারি পটারকে কেন্দ্র করে। ১১ বছরের বালক। বাবা-মা জাদুকরের হাতে নিহত হলেও সে বেঁচে যায় অলৌকিক ভাবে৷ তার আঙ্কেলের বাসায় থাকে হ্যারি যেখানে সে না পায় কোনো আদর, না পায় কোনো সুযোগ-সুবিধা। তবে হ্যারি জাদুকর যদিও সে তে জানেনা। ঘটনাক্রমে তাকে আঙ্কেলদের ফ্যামিলি থেকে উদ্ধার করে হগওয়ার্টস স্কুল অফ উইচক্র্যাফটে ভর্তি করানো হয়৷ এখানে ৭ বছরের ৭ অভিযান। তবে শেষ অভিযান বড় হওয়ায় তাকে দুইভাগ করে দুটো মুভি করা হয়।

এই অভিযানগুলো নিয়ে হ্যারি পটারের ৮ টা মুভি।

বলাবাহুল্য দু’টোরই অনেক বড় ফ্যানবেজ। হ্যারি পটারের সাথে অবশ্য আমাদের দেশের অডিয়েন্সের শৈশবের যোগসূত্র আছে। যেটা আমরা লর্ড অফ দ্যা রিংসের ক্ষেত্রে বেশ পরেই দেখেছি৷ দুটোই আমাদের নিয়ে যায় কাল্পনিক জগতে। দু’টোই অডিয়েন্সকে মুগ্ধ করে রাখে।

হ্যারি পটার এবং লর্ড অফ দ্যা রিংস উভয় মুভি সিরিজ প্রত্যেকটা মুভিতে অনেক আয় করে নেয়। দুটোরই মুভিপ্রতি এভারেজ ইনকাম ১ বিলিয়নের কাছাকাছি।

এরকম আরো মুভি রিভিও দেখতে ক্লিক করুন এখানে – মুভিখোর

তবে কিঞ্চিৎ এগিয়ে লর্ড অফ দ্যা রিংস সিরিজ। হবিট সহ এক করে নিলেও ব্যবধান কিঞ্চিৎ থাকে।

লর্ড অফ দ্যা রিংস মেকিং এর দিক থেকে আমার মনে হয় হ্যারি পটারকে ছাড়িয়ে গেছে। পিটার জ্যাকসনকে এই মুভি সিরিজকে নিয়ে গেছেন অন্য উচ্চতায়। ফলস্বরূপ লর্ড অফ দ্যা রিংস ১৭ টা অস্কার ছিনিয়ে নেয়৷ এখানে অবশ্য হ্যারি পটার একটাও পায়নি।

এই দুই ফ্যান্টাসি এডভেঞ্চারের জন্য এন্ডিং ছিলো মুভির জন্য বড় ফ্যাক্টর। এখানেও আমার মনে হয় লর্ড অফ দ্যা রিংস বেটার। কারণ যেখান থেকে শুরু সেই জিনিসটাকে সুন্দরভাবে ধ্বংসের মাধ্যমে দারুণ এক এডভেঞ্চারের সমাপ্তি।

অন্যদিকে হ্যারি পটারেও অশুভশক্তির বিনাশ দিয়ে শেষ হলেও সেটা যেনো বেশ তাড়াহুড়োতে হয়েছে। মেইন ভিলেন তেমন ফাইটই দিলোনা। যেখানে লর্ড অফ দ্যা রিংসে সাওরানের শক্তিকে শেষ করতে অনেক বেগ পেতে হয়। এমনকি শেষের মোরাল মেসেজটাও বেশ ভালো।

লর্ড অফ দ্যা রিংসের থিম মিউজিকটা আউটস্ট্যান্ডিং। হ্যারি পটারের ও যথেষ্ট ভালো। এছাড়াও দুটোই সময়ের তুলনায় গ্রাফিক্স, মেকিং অনেক ভালো ছিলো।

একদিকে ফ্রোডো, স্যামদের রিং নিয়ে অভিযান আর অন্যদিকে হ্যারিদের ম্যাজিক নিয়ে অভিযান। দুটোই সৃষ্টি করেছে অনন্য দৃষ্টান্ত৷

জানাতে ভুলবেন নাহ অবশ্যই কেমন লাগলো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *