এসইও কী- এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ?

এসইও কী?

এসইও কী? বা এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ আমাদের তা না জানার কারনে আমরা সটিক কিছুই রেজাল্ট পাইনা। তাই আজকে আমরা তা নিয়ে আলোচনা করবো।

সার্চ ইঞ্জিনে আমরা যখন কোন কিছুর খোঁজ করি, তখন ফলাফলের একটি তালিকা দেখানাে হয়। অধিকাংশ সময় তালিকার উপরের লিংকগুলাের দিকে আমাদের মনােযােগ যায়।

সেগুলােতে ক্লিক করার সম্ভাবনাও থাকে বেশি। অবশ্য এসব লিংকের মধ্যে কয়েকটি হতে পারে বিজ্ঞাপন,বাকিগুলাে সাধারণ লিংক।

কোন প্রকার বিজ্ঞাপন ব্যবহার না করে সার্চ ইঞ্জিনের ফলাফলে কোন ওয়েবসাইট, অ্যাপ্লিকেশনও কন্টেন্টের র্যাঙ্কিং ভালাে করার সামগ্রিক প্রক্রিয়াকে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (Search Engine Optimization) বা এসইও (SEO) বলা হয়।

উল্লেখ্য যে, যিনি এ অপটিমাইজেশনের কাজ করেন, তিনিও একজন এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজার হিসাবে পরিচিত। অর্থাৎ, এক্ষেত্রে কাজ আর কাজির একই নাম!

এসইও বলতে অনেকে বােঝেন সার্চ ইঞ্জিনে বিজ্ঞাপন দেয়া। কিন্তু ব্যাপারটা তা নয়। এসইওর মূল উদ্দেশ্য হলাে, সার্চফলাফলে আপনার ওয়েবসাইট বা কন্টেন্টের র্যাঙ্কিং এমনভাবে বাড়ানাে যেন সঠিক ইউজাররা তা খুঁজে পেয়ে আপনার সাইটে চলে আসে।

অর্থাৎ, অর্গানিক সার্চ ফলাফলের (Organic Search Results) যথাসম্ভব উপরের দিকে জায়গা করে নেয়া। অন্যদিকে সার্চ ইঞ্জিনে সরাসরি বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রােডাক্ট,সার্ভিস ও ওয়েবসাইটের প্রচারণা চালানােকে সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং (Search Engine Marketing) বা এসইএম (SEM) বলে। 

ফলাফলের পেইজে “বিজ্ঞাপন” বা “Ad” ট্যাগ লাগানাে থাকে এমন লিংকে। তবে সার্চ র্যাঙ্কিংয়ের সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই।

এসইওর মাধ্যমে রাতারাতি সার্চ ইঞ্জিনের ফলাফলে পরিবর্তন আনা সম্ভব নয়। এর জন্য দরকার দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা ও কৌশল। আপনার টার্গেট অডিয়েন্স বা কাস্টমারদের প্রয়ােজন অনুযায়ী সে পরিকল্পনা আর কৌশলে নিয়মিত পরিবর্তন নিয়ে আসবেন আপনি।

এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ? 

ধরা যাক, আপনি মােবাইল ফোন বিক্রি করেন। আপনি চান যে, মানুষ ইন্টারনেটে ফোন কেনার জন্য সার্চ করলে আপনার ব্যবসা সম্পর্কে জানুক। কিন্তু অন্যান্য ফোন বিক্রেতাও একই জিনিস চান। সেক্ষেত্রে সার্চ ইঞ্জিনের ফলাফলে কার ব্যবসার ব্যাপারে ইউজাররা আগে জানবেন, সেটা একটা প্রতিযােগিতার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। এপ্রতিযােগিতায় অন্যদের চেয়ে। এগিয়ে থাকার জন্য এসইও হতে পারে খুব ভালাে একটি উপায়।

এসইও গুরুত্বপূর্ণ হবার কারণ হলাে, এর মাধ্যমে: 

• তুলনামূলকভাবে কম বিনিয়ােগ করেও দীর্ঘ মেয়াদে প্রােডাক্ট

সার্ভিস বা প্রতিষ্ঠানের প্রচারণা চালাতে পারবেন

• সম্ভাব্য কাস্টমারদের আস্থা অর্জন করা সহজ হয়

 • ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বাড়াতে পারবেন।

শুধু অনলাইন ব্যবসা বা সার্ভিসের মধ্যে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সীমাবদ্ধ নয়। যেকোন আকারের যেকোন প্রতিষ্ঠানের প্রচারণা চালাতে এর ব্যবহার সম্ভব। এমনকি নিজস্ব ওয়েবসাইট

থাকলেও এসইও নিশ্চিত করা যায়।

এসইও কত প্রকার ও কী কী? 

কাজের দিক থেকে এসইও সাধারণত তিন প্রকার:

• অন-পেইজ এসইও বা অন-সাইট এসইও 

• অফ-পেইজ এসইও বা অফ-সাইট এসইও 

• টেকনিক্যাল এসইও

অন-পেইজ এসইও বা অন-সাইট এসইও কি

একটি ওয়েবপেইজের কন্টেন্টকে নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে সাজানাে ও উপস্থাপনের প্রক্রিয়াকে। অন-পেইজ এসইও (On-page SEO) বা অন-সাইট এসইও (On-site SEO) বলা হয়। এর মাধ্যমে সাইটের ইউজারদের ও সার্চ ইঞ্জিনগুলাের কাছে আপনার ওয়েবপেইজের বিষয়বস্তু পরিষ্কার করে তুলে ধরবেন আপনি। অন-পেইজ এসইওর কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হলাে:

• হেডিং, 

• মূল কন্টেন্ট,হেডিং

 • কন্টেন্টে ব্যবহৃত লিংক, 

• কন্টেন্টে ব্যবহৃত ছবি ও ভিডিও,

• মেটা ট্যাগ ইত্যাদি।

অফ-পেইজ এসইও বা অফ-সাইট এসইও কি

ইউজার ও সার্চ ইঞ্জিনগুলাের কাছে ওয়েবসাইটের গ্রহণযােগ্যতা ও জনপ্রিয়তা বাড়ানাের জন্য মূল ওয়েবসাইটের বাইরে কিছু কাজ করতে হয়। যেমন, অন্য ওয়েবসাইট থেকে আপনার ওয়েবসাইটে লিংক নিয়ে আসা বা সােশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং। 

এ প্রক্রিয়াকে অফ-পেইজ এসইও (Off-page SEO) বা অফ-সাইট এসইও (Off-site SEO) বলে। অবশ্য এতে সবচেয়ে বেশি জোর দেয়া হয় লিংক অর্জনের উপর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *